শিশুসাহিত্যের নায়ক - লুৎফর রহমান রিটন

amarboi.com


শিশুসাহিত্যের নায়ক
লুৎফর রহমান রিটন


কী বিপদেই না ফেলেছিলেন আমাকে মুহম্মদ জাফর ইকবাল!
আশির দশকের সূচনার দিকে সাপ্তাহিক কিশোর বাংলায় মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপন্যাস দীপু নাম্বার টু প্রকাশিত হলো। হৃদয়ছোঁয়া সেই উপন্যাসটি জয় করে নিলো শিশু-কিশোরদের মন। আমি তখন ওয়ারীতে থাকি। আমার কাছে এই উপন্যাসের বিস্তর প্রশংসা শুনে উপন্যাসটি পড়ার প্রবল আকাঙ্ক্ষা নিয়ে আমাদের হেয়ার স্ট্রিটের বাড়িতে এসে হাজির হলো আমার বন্ধু সদ্য কৈশোর পেরোনো ছড়াকার তুহীন রহমান। নিচতলায় এক রুমের একটি কক্ষে আমি থাকি। কিছু খানাখাদ্যসমেত তুহীনকে ঘরবন্দি করে আমি ওপরতলায় চলে গেলাম। ঘরটায় তালা ঝুলিয়ে ওকে সময় দিলাম দুই ঘণ্টা। দুই ঘণ্টা পর তালা খুলে ভেতরে প্রবেশ করে দেখি আমার খুদে লেখার টেবিলটায় মাথা রেখে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছে তুহীন! আমাকে দেখতে পেয়ে ওর কান্নার গতি এবং শব্দ মুহূর্তেই বিপদসীমা অতিক্রম করল। সর্বনাশ! বাইরে থেকে লোকজন ভাববে আমি ওকে ধোলাই করছি! নানান কায়দায় বুঝিয়ে-শুনিয়ে ওর কান্নাকে সামাল দিলাম। চোখ মুছতে মুছতে অদ্ভুত এক বায়না ধরল তুহীন। বায়নাটা অভাবিত, বাংলা চলচ্চিত্র প্রভাবিত। তুহীন যা বলল তার সারাংশটি এ রকম : উপন্যাসটি পড়ে ওর বুক ভেঙে গেছে! এখন কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খাওয়া তুহীনকে ভয়াবহ এই বেদনার ভার থেকে মুক্ত হতে হবে বাংলা সেবন করে! মুহম্মদ জাফর ইকবালের উপন্যাসের পঞ্চমুখ প্রশংসা করে এ কি মুশকিলে পড়লাম! জীবনে প্রথম বাংলা শিশুসাহিত্যের সেবা করতে গিয়ে বাংলা সেবনের দায় কাঁধে নিতে হলো! তুহীনের বাসনাটিকে বাস্তবতায় রূপ দিতে গিয়ে ভীষণ একটা ঝুঁকি নিলাম। জানাজানি হলে কেলেঙ্কারি হবে, তবুও। বনগ্রামের ছেলে তুহীন ঠাঁটারিবাজারের গোপন আস্তানা থেকে মাঝারি একটা বোতল নিয়ে এলো। সঙ্গে একমুঠো কাঁচালঙ্কা। তুহীনের দুঃখমোচন এবং ওর বাংলা সেবনকে নিরুপদ্রব ও নিষ্কণ্টক রাখতে বাইরে থেকে তালা মারাটা বিপজ্জনক ভেবে আমি ভেতরেই অবস্থান নিলাম। কাঁচালঙ্কার ঝাল আর নির্ভেজাল বাংলার মিথস্ক্রিয়ায় নাকের পানি চোখের পানিতে সয়লাব হতে হতে তুহীন স্বগতোক্তি করল বারংবার_ শালায় এইটা কী লিখল!!!!
'শালা' গালিটার এত মমতাপূর্ণ, এত ভালোবাসাপূর্ণ প্রয়োগ সেই প্রথম আমি প্রত্যক্ষ করেছিলাম! 
আমাদের শিশুসাহিত্যের নায়ক 
কপোট্রনিক সুখদুঃখ, হাতকাটা রবীন, দীপু নাম্বার টু, মহাকাশে মহাত্রাস, দুষ্টু ছেলের দল, ট্রাইটন একটি গ্রহের নাম, বিজ্ঞানী সফদর আলীর মহা মহা আবিষ্কার, আমড়া ও ক্র্যাব নেবুলা, জলমানব এবং আমার বন্ধু রাশেদ-এর মতো গল্প-উপন্যাস লিখে আমাদের শিশুসাহিত্যের পাঠকদের বিপুল আদর কেড়েছেন তিনি। পাঠকপ্রিয়তার বিবেচনায় এই মুহূর্তে বাংলাদেশের শিশুসাহিত্যের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ লেখকের নাম মুহম্মদ জাফর ইকবাল। স্বাধীনতা-পরবর্তী আমাদের শিশুসাহিত্যের সমসাময়িক সব লেখককে পেছনে ফেলে একজন মুহম্মদ জাফর ইকবাল পেঁৗছে গেছেন খ্যাতির সর্বোচ্চ শিখরে। জাদুর কলম হাতে এসেছেন তিনি। তাঁর জাদুস্পর্শে বর্ণাঢ্য পুষ্প-পত্র-পল্লবে অনিন্দ্যসুন্দর হয়ে উঠেছে আমাদের শিশুসাহিত্যের ভুবনটি। 
দৈনিক গণকণ্ঠে 'ইকবাল' নামের একজন কার্টুনিস্ট ছিল 
স্বাধীনতার পরপর গণকণ্ঠ নামে একটি দৈনিক পত্রিকা বিপুল পাঠকনন্দিত হয়েছিল। ওয়ারীর রাংকিন স্ট্রিট থেকে বের হতো পত্রিকাটি। কিশোর আমি প্রতিদিন সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠেই হাঁটতে হাঁটতে চলে যেতাম গণকণ্ঠ অফিসে। গণকণ্ঠ অফিসের দেয়ালে ভোরবেলায় লেই দিয়ে সেদিনের সদ্য প্রকাশিত পত্রিকার পাতাগুলো সাঁটিয়ে রাখা হতো। মর্নিং ওয়াকে বেরোনো একদল মানুষ মিনি মাগনায় পত্রিকাটি পড়ার জন্যে ভিড় জমাত। ভিড় ঠেলে আমিও প্রতিদিন পত্রিকাটি পড়তে যেতাম। আমার তখন কার্টুন জমানোর হবি ছিল। বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত কার্টুন কেটে কেটে সেগুলো একটা খাতায় আঠা দিয়ে সেঁটে রাখতাম আমি। গণকণ্ঠে 'ইকবাল' নামে একজন কার্টুন আঁকতেন নিয়মিত। ১৯৭৩ সালের পহেলা জানুয়ারি ঢাকার তোপখানা রোডের আমেরিকান কালচারাল সেন্টার ইউসিস-এর সামনে ছাত্র ইউনিয়নের মিছিলে পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারাল মতিউলসহ (দ্বিতীয়জনের নামটা মনে পড়ছে না, সম্ভবত কাদের) দুই তরুণ। আমার মনে আছে, পরদিন গণকণ্ঠের প্রথম পাতায় ছাপা হওয়া ইকবালের আঁকা একটা কার্টুনের কথা। সেই কার্টুনে একটা ডালের ওপর দুটি শকুন বসা। একটি আরেকটিকে বলছে_ 'বছরের শুরুতেই নরমাংসের গন্ধ পাওয়া গেল। বছরটা ভালোভাবেই যাবে বলে মনে হচ্ছে...।' 
কার্টুনিস্ট সেই 'ইকবাল'ই আজকের নন্দিত লেখক এবং পাঠকপ্রিয় কলামিস্ট মুহম্মদ জাফর ইকবাল।
বিটিভির ছোটদের ধারাবাহিক নাটকে দীপু নাম্বার টু
এককালে বাংলাদেশ টেলিভিশন ছিল আমার সকল ধ্যান-জ্ঞানের কেন্দ্রবিন্দু। রাতদিন আমি পড়ে থাকতাম বিটিভি ভবনে। প্রচুর অনুষ্ঠান করতাম। উপস্থাপনা করা, স্ক্রিপ্ট লেখা এবং নির্দেশনা দেওয়া ছিল আমার অলিখিত পেশা। বিটিভির কর্মী বা চাকুরে ছিলাম না আমি, কিন্ত প্রতিদিন নিয়মিত আরও আট-দশজন স্টাফের মতো আমি ওখানে যেতাম। বিভিন্ন ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে আমার লেখা খুদে খুদে নাট্যাংশ বা স্কিড দেখে প্রযোজক কাজী কাইয়ূম একদিন বললেন ছোটদের জন্য একটা ধারাবাহিক নাটক লিখতে। লিখলাম ঝন্টুপন্টু। ঝন্টুপন্টু নামের সেই ধারাবাহিক নাটকটি ছোটদের বিপুল ভালোবাসা পেল। কিছুদিন বিরতি দিয়ে বিটিভি আবারও আরেকটি ছোটদের ধারাবাহিক নাটক রচনা ও পরিচালনার জন্যে বললে আমি শুরু করলাম 'হইচই'। নিজের গল্প বা কাহিনী নিয়ে সিরিজ লেখার সুযোগ না নিয়ে আমি চাইলাম আমাদের শিশুসাহিত্যের চমৎকার সব গল্প আর উপন্যাসের নাট্যরূপ দিতে। কাইয়ূম ভাইয়ের মাধ্যমে বিটিভিকে এর প্রয়োজনীয়তাটুকুও বোঝাতে সক্ষম হলাম। মোহাম্মদ নাসির আলীর লেবু মামার সপ্তকাণ্ড , রাহাত খানের দিলুর গল্প, রাবেয়া খাতুনের লাল সবুজ পাথরের মানুষ, আলী ইমামের বনকুসুমপুর রহস্য, ফরিদুর রেজা সাগরের পিংকুইগ্রামসহ বেশ কিছু গল্প-উপন্যাসের নাট্যরূপ প্রচারিত হয়েছিল ছোটদের ধারাবাহিক সিরিজ নাটক 'হইচই'-এ। এই হইচই সিরিজে চার পর্বে প্রচারিত হয়েছিল মুহম্মদ জাফর ইকবালের 'দীপু নাম্বার টু'। নাটকে দীপু চরিত্রে অঞ্জন, দীপুর বাবা আর মায়ের ভূমিকায় খায়রুল আলম সবুজ এবং শিরীন বকুল অভিনয় করেছিলেন। বিটিভির খুদে দর্শকদের বিপুল ভালোবাসা পেয়েছিল সিরিজটি। বিশেষ করে 'দীপু নাম্বার টু'র জনপ্রিয়তা ছিল প্রত্যাশার সীমানা ছাড়ানো। এই সিরিজ নাটকের শুরুতে আমি নিজেই পর্দায় হাজির হতাম। কাহিনীর লেখক সম্পর্কে তথ্য দিতাম। সেই লেখকের উল্লেখযোগ্য রচনাসমূহের পরিচিতি তুলে ধরতাম। লেখক কোথায় আছেন, কী করছেন, কী লিখছেন ইত্যাদি তথ্য দিতাম। এসব কথাবার্তার ফাঁকে ফাঁকে লেখকের বেশ কিছু স্টিল ছবি প্রদর্শিত হতো পর্দায়। মুহম্মদ জাফর ইকবাল সম্পর্কে সাম্প্রতিক তথ্য এবং প্রয়োজনীয় স্টিল ছবি সংগ্রহ করতে এক বিকেলে আমি ইকবালের অগ্রজ আরেক প্রখ্যাত লেখক হুমায়ূন আহমেদের বাড়িতে গেলাম। হুমায়ূন আহমেদ তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হলের প্রভোস্ট। হুমায়ূন ভাই পরম যত্নে অনেক আগ্রহভরে আমাকে তাদের পারিবারিক অ্যালবাম থেকে অনেকগুলো ছবি দিলেন। মুহম্মদ জাফর ইকবাল তখন পিএইচডি করছেন আমেরিকায়। লেখকের পক্ষে অনুমতিটাও হুমায়ূন ভাইই দিলেন। আমার একটা গোপন ইচ্ছে ছিল ভবিষ্যতে দীপু নাম্বার টু নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণের। কিন্তু আমার আগেই আমার চেয়ে মেধাবী, আমার চেয়ে অ্যাকটিভ, আমার চেয়ে যোগ্য মোরশেদুল ইসলাম ঘটনাটি ঘটিয়ে ফেলেছেন! মোরশেদুলের পরিচালনায় চলচ্চিত্রটি মুক্তি পেলে আমি আমার সম্পাদিত ছোটদের কাগজ পত্রিকার কভার স্টোরি করেছিলাম আমার স্বপ্নের ছবি দীপু নাম্বার টু-কে নিয়ে। 
নতুন প্রজন্মের হিরো 
শিশুসাহিত্যে এ বছর সিটি আনন্দআলো সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছিলেন মুহম্মদ জাফর ইকবাল। মার্চের প্রথম সপ্তাহে, ৫ মার্চ দুপুরে চ্যানেল আই স্টুডিও থেকে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়েছিল পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানটি। আমি ছিলাম অনুষ্ঠানের উপস্থাপক। অনুষ্ঠান শেষে দুপুরে ইকবাল সস্ত্রীক আমাদের সঙ্গে লাঞ্চ করলেন। ক'দিন পরেই আমার ফিরতি ফ্লাইট কানাডার উদ্দেশে। আমার কন্যা নদী বলে দিয়েছিল তার প্রিয় লেখক মুহম্মদ জাফর ইকবালের অটোগ্রাফসহ কয়েকটা বই যেন নিয়ে যাই কানাডায়। বইমেলায় নানা ব্যস্ততায় কাজটা করা হয়নি। খেতে খেতেই ঘটনাটা বললাম। আমীরুল সমাধান দিল, এক্ষুণি চ্যানেল আইয়ের একজন সহযোগীকে পাঠিয়ে বেইলি রোডের সাগর পাবলিশার্স থেকে ইকবাল ভাইয়ের কয়েকটা বই আনিয়ে নিলেই তো হয়। ইকবাল ভাই আরেকটি অনুষ্ঠান রেকর্ডিংয়ের প্রয়োজনে বিকেল পর্যন্ত চ্যানেল আইয়েই তো আছেন। আমাকে উদ্যোগী হতে দেখে ইকবাল ভাই নিরস্ত করলেন_ অত ঝামেলার কী দরকার। আমার বাসায় অনেক বই আছে। রাতে বাসায় চলে আসুন। চা-ও হবে, নদীর জন্য অটোগ্রাফটাও হবে। রাতে আমি আর আহমাদ মাযহার গেলাম উত্তরায় তাঁর বাসায়। ইকবাল ভাই একের পর এক বইয়ে নদীর জন্য অটোগ্রাফ দিচ্ছেন। আমি মুঠোফোনে কানাডায় কল দিলাম। আমার স্ত্রী শার্লি জানাল নদী এখন ইউনিভার্সিটিতে। ইকবাল ভাইয়ের সঙ্গে আজকের ঘটনার বিবরণ শুনে ফোনের অন্যপ্রান্তে আমার স্ত্রীও উচ্ছ্বসিত হয়ে উঠল_ আরে! শুধু নদীকে অটোগ্রাফ দিলেই হবে? আমার জন্যও নিয়ে আয় কয়েকটা। আমিও তো ইকবাল ভাইয়ের ভক্ত পাঠক! তুই ফোনটা ইকবাল ভাইকে দে, আমিই বলি। শার্লির সঙ্গে কথা বলে ইকবাল ভাই হাসি হাসি মুখ করে আমার স্ত্রী শার্লির নামেও সই করে বই উপহার দিলেন। ইকবাল ভাই বোধহয় ভাবছিলেন এরপর আমিও তাঁর অটোগ্রাফ চেয়ে বসব। আড়চোখে বার কয়েক আমার দিকে তাকালেনও! নেহাত ইকবাল ভাইয়ের ক্লান্তির কথা ভেবে আমি সেইবেলা বিরত থাকলাম। আহারে! অটোগ্রাফ দিতে দিতে ক্লান্ত বেচারা!
কিন্তু অটোগ্রাফ দিতে গিয়ে ইকবাল কখনোই ক্লান্ত হন না। প্রতিবছর একুশের বইমেলায় বাংলা একাডেমীর নজরুল মঞ্চের পেছনের সিঁড়িতে বা গোলচত্বরে বসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অটোগ্রাফ দেন তিনি। কিশোর-তরুণরা সুদীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে তাঁর অটোগ্রাফ নেয়। ইকবাল ভাইয়ের সাধ্য নেই একটু হেঁটে বইমেলাটা দেখার। হাঁটতে গেলেই তাঁর পেছনে মৌচাকের মতো ভিড় জমাট বেঁধে থাকে। অথচ এককালে ঘটনা বা পরিস্থিতি এ রকম ছিল না। আমার মনে আছে, পনেরো-কুড়ি বছর আগে এই বাংলা একাডেমীর বইমেলাতেই মুহম্মদ জাফর ইকবাল হাঁটছিলেন একা একা। এই স্টল সেই স্টল ঘুরে ঘুরে বই দেখছেন। তখনও এ দেশের পাঠকরা তাঁর চেহারা চেনে না। তখন প্রতীক প্রকাশিত তাঁর 'সায়েন্সফিকশনসমগ্র' ছাড়া অন্য কোনো বইয়ের ফ্ল্যাপে বোধহয় তাঁর কোনো ছবিও ছাপা নেই (আমি কি ঠিক বললাম?)। একলা একা হাঁটছেন এ রকম একজন গুণী লেখক, তাঁকে সঙ্গ দেওয়া দরকার ভেবে আমি এগিয়ে গিয়েছিলাম। কুশল বিনিময়ের পর এটা-সেটা নানা কথার এক পর্যায়ে বললাম, এত পাঠকপ্রিয় লেখক আপনি অথচ কী আশ্চর্য পাঠক আপনাকে চিনতে পারছে না! তিনি বললেন, এই যে একলা একা নিজের ইচ্ছামতো হাঁটছি আমি বইমেলায়, কেউ আমাকে চিনতে পারছে না, এটা আমি এনজয় করছি। বললেন, হুমায়ূন আহমেদের সেই কপাল নাই। একটা স্টলে এসে বসেন। ব্যস। নট নড়ন চড়ন অবস্থা। ওই যে দেখেন বড় ভাইজানের কী হাল! সেই বিকেলে অদূরে দাঁড়িয়ে থাকা নিয়তি আমাদের কথোপকথন শুনে মুখটিপে খুব একপ্রস্থ হেসেছিল বোধকরি। কারণ এখন বইমেলায় মুহম্মদ জাফর ইকবালেরও নট নড়ন চড়ন অবস্থা। শুধু বইয়ের পাঠক নয়, মিডিয়ার কল্যাণে সারাদেশের মানুষই তাঁর চেহারা চেনে এখন। এখন তিনি স্টারের ওপর স্টার। সুপারস্টার।
অভিনন্দন মুহম্মদ জাফর ইকবাল! 
হাস্যোজ্জ্বল নিপাট ভদ্রলোক, নিরহঙ্কার, সরল, সাদাসিধে (সাদাসিধে নামে একটা কলামের বই আছে তাঁর, ধ্রুবর করা প্রচ্ছদ, ফ্রিহ্যান্ড লেটারিংটা আমার ছিল!), দেশপ্রেমীক, কমিটেড এবং বিরল রকমের ভালো মানুষ মুহম্মদ জাফর ইকবাল। সৎ-নির্লোভ-দায়িত্বশীল-বিজ্ঞানমনস্ক-দেশপ্রেমিক একটি প্রজন্মের স্বপ্ন দেখেন তিনি। এ দেশের তরুণ প্রজন্ম তাঁকে ভালোবাসে। শ্রদ্ধা করে। বিশ্বাস করে। তরুণদের বিশ্বাসের মূল্যও তিনি দেন। আর তাই তো কোনো প্রলোভন কিংবা চোখ রাঙানিতে একটুও বিচলিত হন না মুহম্মদ জাফর ইকবাল। একাত্তরের পরাজিত শক্তি ঘাতক দালাল রাজাকার-আলবদরদের বিরুদ্ধে তাঁর ভূমিকা সুস্পষ্ট এবং কার্যকর। তাঁর শক্তিশালী কলমটিকে (বলেছিলেন, এখনও হাতেই লেখেন কাগজে-কলমে, কম্পিউটারে লেখেন না!) আমার অভিবাদন। ঘাতক-যুদ্ধাপরাধী নরপশুদের অমানবিক হিংস্রতা আর নিষ্ঠুরতার বিরুদ্ধে আমাদের প্রতিবাদ-প্রতিরোধ আর ঘৃণার অগি্নমন্ত্র রচিত হয় এই কলমেই। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের গৌরবগাথা, আমাদের স্বাধীনতার আনন্দ-বেদনা, আমাদের অসাম্প্রদায়িক চেতনার অপরূপ প্রতিচ্ছবি মূর্ত হয়ে ওঠে এই কলমেই। অভিনন্দন সাহসী কলমযোদ্ধা মুহম্মদ জাফর ইকবাল। 
ছোটদের আদর আর বড়দের সমীহ পাওয়া খুব সহজ ব্যাপার নয়। কিন্তু এক জীবনে মুহম্মদ জাফর ইকবাল এ দুটোই অর্জন করেছেন ঈর্ষণীয় দক্ষতায়!

You can follow us on Twitter or join our Facebook fanpage to keep yourself updated on all the latest from Bangla Literature.
Download Bangla books in pdf form mediafire.com and also read it online. Read it from iPad, iPhone. Muhammad-Zafar-Iqbal-Lutfar-Rahman-Riton, bangla ebooks, free download , mediafire , humayun ahmed , zafar iqbal , sunil gangopadhaya , suchitra , bengali ebooks, free bangla books online, ebooks bangla, bangla pdf, bangla books, boi, bangla boi, amarboi.
This is the largest online Bengali books reading library. In this site, you can read old Bengali books pdf. Also, Bengali ghost story books pdf free download. We have a collection of best Bengali books to read. We do provide kindle Bengali books free. We have the best Bengali books of all time. We hope you enjoy Bengali books online free reading.

If Download link doesn't work then please comment below. Also You can follow us on Twitter, Facebook Page, join our Facebook Reading Group to keep yourself updated on all the latest from Bangla Literature. Also try our Phonetic Bangla typing: Avro.app
বইটি শেয়ার করুন :

Authors

 
Support : Visit our support page.
Copyright © 2018. Amarboi.com - All Rights Reserved.
Website Published by Amarboi.com
Proudly powered by Blogger.com