Pages

লো ল্যান্ড (নাবাল জমি) - ঝুম্পা লাহিড়ী বাংলা অনুবাদ পৌলোমী সেনগুপ্ত

Nabal Jomi Jhumpa Lahiri
লো ল্যান্ড (নাবাল জমি) - ঝুম্পা লাহিড়ী বাংলা অনুবাদ পৌলোমী সেনগুপ্ত
কলকাতা নগরীর টালিগঞ্জের দুই ভাই: সুভাষ ও উদয়নকে ঘিরে দ্য লোল্যান্ড-এর কাহিনি। ছোট ভাই উদয়ন, তার স্ত্রী গৌরী এবং গৌরীর কন্যা বেলা কাহিনিকে ক্রমাগত টেনে নিয়ে যায়। পূর্ববর্তী চরিত্রগুলোর প্রভাবক ভূমিকা পরবর্তীতে সম্প্রসারিত হয়। চারু মুজমদারের নক্সালবাড়ি আন্দোলন প্লট আকারে থাকে, তবে শেষ পর্যন্ত সে আন্দোলনের রেশ ফিকে হয়ে আসে উপন্যাসের বয়ানে। অ্যামেরিকাপ্রবাসীদের মনোভূমির মরুময়তা জায়গা নেয় টালিগঞ্জের জলাভূমির উপরে। সমীকরণ জায়গা বদল করে ইতিহাস থেকে ভূগোলে, ভূগোল থেকে মনস্তত্ত্বে। লোল্যান্ড হয়ে যায় একুশ শতকী ওয়েস্টল্যান্ড। উপন্যাসে বিধৃত সময় পরিধি প্রায় আধা শতাব্দীকাল: ১৯৬০ থেকে ২০১০। ভূ-রাজনীতির নাগরদোলাগুলো, যথা: চীনা কমুনিস্ট বিপ্লব, ভিয়েতনাম যুদ্ধ ও সেখানে আমেরিকানদের মাইলাই হত্যাকাণ্ড, একাত্তরের বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ, ভারতে ইন্দিরা গান্ধীর শাসন ও কম্যুনিস্ট দমন, কিউবায় ডানদের ওপর বামদের হামলা ইত্যাদি। সাম্প্রতিক রাজনীতির ইস্যুগুলো সমাজচেতনার উপাদান হয়ে দাঁড়ায়। প্রচুর বাংলা নাম, বাংলা শব্দ আছে এতে: প্রতিমার নাম দুর্গা, সরস্বতী; ফুলের নাম বেলা; পরিধেয় বস্ত্রের নাম শাড়ি, লুঙ্গি; খাবারের নাম ভাত, ডাল, আলুভর্তা; বাজারের নাম বালিগঞ্জ, টালিগঞ্জ ইত্যাদি।

ঝুম্পা লাহিড়ি ভারতীয় ঔপন্যাসিক। পুলিৎজার প্রাইজ, হেমিংওয়ে অ্যাওয়ার্ড, ফ্রাংক ও’কনর আন্তর্জাতিক ছোটগল্প অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। তিনি অ্যামেরিকা প্রবাসে আছেন। মাতৃভূমি ভারতের প্রতি তাঁর শেকড়বাঁধা টান। ইন্টারপ্রেটা(র) অব ম্যালাডিজ, দ্য নেইমসেইক, আনঅ্যাকাস্টম্বড্ অ্যার্থ– তাঁর তিনটি উপন্যাস, এবং সর্বশেষ দ্য লোল্যান্ড, যার প্রকাশক র‌্যানডম হাউজ ইন্ডিয়া, সাল ২০১৩।