সাম্প্রতিক বইসমূহ

ঈশ্বর, সৃষ্টি ও ধর্ম - সা'দ উল্লাহ

ঈশ্বর, সৃষ্টি ও ধর্ম - সা'দ উল্লাহ
ঈশ্বর, সৃষ্টি ও ধর্ম - সা'দ উল্লাহ

সা’দ উল্লাহ একজন বাঙালি পণ্ডিত ব্যক্তি। ধর্মীয় বিষয়ে মহিমময় এই ব্যক্তির জ্ঞানের গভীরতা এবং ব্যাপকতা, যারাঁই তাঁর সান্নিধ্যে এসেছেন, দেখে মুগ্ধ হয়েছেন। ধর্মীয় বিষয় মানে শুধু ইসলাম নয়;যে কোন ধর্মীয় বিষয় তিনি একজন পণ্ডিত ছিলেন। তাঁর কন্যা বীণা বিন্তে সৈয়দের কথায়, “বড়দের কাছে শুনেছি,আব্বা আগে বেশ ধর্মকর্ম করতেন! ইসলামের ইতিকথা পড়ে পুরাপুরি সব বিসর্জন দেন,আমৃত্য”।
১৯২৭ সালে পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার কেতুগ্রামে সা’দ উল্লাহর জন্ম। ছয় বছর বয়সে বাবা-মাকে হারিয়ে মামাদের বাসায় তাঁর বেড়ে ওঠা। গ্রামের স্কুল শেষ করে কলকাতায় রিপন কলেজে ভর্তি হন। দেশজুড়ে তখন অস্থির উথালপাতাল সময়, দাঙ্গা, দুর্ভিক্ষ, দেশভাগের টানাপোড়েন পেরিয়ে ১৯৪৮ সালে ঢাকায় চলে আসেন তিনি। দিনে চাকরি, রাতে পড়াশুনা এভাবেই ঢাকা ইউনিভার্সিটি থেকে ইসলামের ইতিহাসে মাস্টার্স করেন। প্রায় কুড়ি বছর পর তিনি এল এল বি করেন এবং অবসর নেবার পর ঢাকা লেবারকোর্ট এবং কিছু নাম করা প্রতিষ্ঠানে আইনবিষয়ক উপদেষ্টা হিসাবে কাজ করেন। কর্মসূত্রে,ইংল্যান্ড, রাশিয়া,জাপানসহ বেশকিছু দেশ ঘুরেছেন। যখনই বিদেশের কোন দেশে যেতেন,সেদেশের ভালো সবকিছু নিজের করে নেবার চেষ্টা করে যেতেন নিরলস ভাবে।
ঘরোয়াআসরে তাঁর গাওয়া রবীন্দ্রসংগীত সুধিজনের প্রশংসা পেয়েছিল! এছাড়া তিনি তবলা আর বেহালাবাদক হিসেবেও খ্যাতি পেয়েছিলেন,বন্ধু মহলে। লেখালেখির শুরু চট্টগ্রামে। দৈনিক আজাদী পত্রিকায় "রং -তুলি- ক্যানভাস" নামে কলাম লিখেছিলেন, দৈনিক পূর্বকোণ পত্রিকায় ও লিখেছিলেন বেশ ক' বছর।
ঢাকায় দৈনিক জনকণ্ঠ পত্রিকায় তাঁর ইসলাম বিষায়ক কলাম লিখে প্রচুর জনপ্রিয়তা পায়।এরপর মৌলবাদের চক্করে পড়ে তাঁকে বাধ্য করা হয় লেখা বন্ধ করতে!এরপর আর কোন পত্রিকায় তাঁকে লিখতে দেওয়া হয়নি। এই লিখতে না পারার ব্যাপারটা তাঁকে বেশ কষ্ট দিতো। আর সেই কষ্ট থেকে মুক্তি পেতে তিনি শুরু করেন অনুবাদ! যা তাঁকে ব্যস্ত রেখেছিল অবসরজীবনে। সাদ'উল্লাহ আজীবন "সবার উপরে মানুষ সত্য," এই মতবাদের পূজারি ছিলেন। ধর্ম বলতে তিনি বুঝতেন মানবধর্ম,আর কিছু নয়! তিনি এই কথা কেবল বিশ্বাস করতেন,তা নয়,রীতিমত তার চর্চাও করতেন।
১৯শে অক্টোবর, ২০১৭ এ, ক্রমাগত উঠা-নামা সমৃদ্ধ,বর্ণময় দিনগুলোর মোহমায়া কাটিয়ে পরিণত বয়েসে সাদ'উল্লাহ র জীবনাবসান ঘটে।

ডি মায়াল এডোয়ার্ডস্‌ এর ধর্ম-দর্শন - সুশীল কুমার চক্রবর্তী

ডি মায়াল এডোয়ার্ডস্‌ এর ধর্ম-দর্শন - সুশীল কুমার চক্রবর্তী
ডি মায়াল এডোয়ার্ডস্‌ এর ধর্ম-দর্শন - সুশীল কুমার চক্রবর্তী
THE PHILOSOPHY OF RELIGION By D. Miall Edwards

রাজনীতি, শিক্ষা, সংস্কৃতি - বদরুদ্দীন উমর

amarboi
রাজনীতি, শিক্ষা, সংস্কৃতি
বদরুদ্দীন উমর

মুখবন্ধে বদরুদ্দীন উমর লিখেছেন...
রাজনীতি, সমাজ, শিক্ষা, সংস্কৃতি ইত্যাদির ওপর ২০১০ সালে লিখিত ও প্রকাশিত কতকগুলি প্রবন্ধ নিয়ে এই সংকলন। এখানে যেসব ঘটনা ও সমস্যা বিষয়ে আলােচনা করা হয়েছে তার দ্বারা এই সময়ের বাঙলাদেশের ইতিহাসের সাথে পাঠক যাতে পরিচিত হতে পারেন সেই উদ্দেশ্যেই এগুলাে এখানে এভাবে সংকলিত হলাে। বাঙলাদেশ তার জন্মকাল থেকেই অনেক ধরনের পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে। দেশটির এই যাত্রাপথে বাঙলাদেশের নতুন শাসক শ্রেণী উৎপাদন ও সম্পদ সৃষ্টির ক্ষেত্রে অনেক সাফল্য অর্জন করলেও শুধু এর ছিটে-ফোটা অন্যদের কাছে পৌছানাে ও সাধারণভাবে দেশের বিপুল অধিকাংশ মানুষ শুধু যে অর্জিত সম্পদের সুষম বণ্টন থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তাই নয়, তাদের ওপর অনেক নির্যাতনও শাসক শ্রেণীর দ্বারা হচ্ছে। বাঙলাদেশের মত শ্রেণীবিভক্ত সমাজে এটাই স্বাভাবিক। বিক্ষিপ্ত এবং অসংগঠিতভাবে জনগণ এ সবের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও প্রতিরােধ করছেন। সাধারণভাবে সমাজে ও শিক্ষা সংস্কৃতির ক্ষেত্রে যে পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে ও সূচিত হচ্ছে সেগুলাের ওপরই এই সংকলনে অন্তর্ভুক্ত প্রবন্ধগুলাে লেখা হয়েছে।
আশা করি এর মধ্যে পাঠকগণ শুধু যে ২০১০ সালের ঘটনাবলী ও পরিস্থিতির সাথে পরিচিত হতে পারবেন তাই নয়, বাঙলাদেশ রাষ্ট্রের চরিত্রের সাথেও তাদের পরিচয় হবে।

কাব্যসমগ্র ২য় খন্ড - বিনয় মজুমদার

কাব্যসমগ্র ২য় খন্ড - বিনয় মজুমদার কাব্যসমগ্র ২য় খন্ড - বিনয় মজুমদার

জন্ম: ১৯৩৪ সালে বর্মার তেডো শহরে | পঞ্চাশের দশকের কিংবদন্তি কবি | পেশায় ইঞ্জিনিয়ার হয়েও সারাজীবন কাটিয়েছেন কবিতার সাধনায় | অকৃতদার এই কবির শেষ জীবন বড়ো দুঃখের, অসুখে-নিঃসঙ্গতায় | মৃত্যুর বছর খানেক আগে তাঁকে দুটি বড়ো পুরুষ্কার-রবীন্দ্র পুরুষ্কার এবং একাদেমি পুরুষ্কার দেওয়ায় জাতির বিবেক যেন কিছুটা শান্তি পায় | ষাটের দশকেরপরে অসুস্হতার জন্য কবিতা লেখা কমে গিয়েছিল | মোট কাব্যগ্রন্থ কুড়ির কাছাকাছি, যার মধ্যে ফিরে এসো চাকা তাঁকে সবচেয়ে বেশি খ্যাতি দিয়েছে | জ্যোতির্ময় দত্ত একে 'গুপ্ত ক্লাসিক'বলেছেন | এর নামহীন কবিতাগুলি সংখ্যাক্রমে চিন্হিত, নীচে তারিখ দেওয়া | 'মানুষ নিকটে গেলে প্রকৃত সারসে উড়ে যায়', প্রবাদসম এই পঙক্তি সেই বইয়েরই | মৌলিক প্রতিমা নির্মান, বিশিষ্ট অন্বয় এবং ভাবের ও আবেগের তীব্রতা ও নিবিড়তা তাঁর কবিতাকে স্বাতন্ত্র্য দিয়েছে | অল্পস্বল্প প্রবন্ধও লিখেছেন, পাশাপাশি কিছু অনুবাদগ্রন্থও | রুশ ভাষা লিখেছিলেন যা অনুবাদের কাজে লেগেছে | জীবনানন্দের কবিতার কথা যেমন তরুণ কবিদের শিক্ষা ও প্রেরনা দেয়, বিনয়ের নির্বাচিত প্রবন্ধও তেমনি হয়ে উঠতে পারত, যদি আরও একটু যত্নের সঙ্গে সংকলিত হত | ইন্ঞ্জিনিয়ারিং পেশা ত্যাগ করলেও, বিজ্ঞানের শিক্ষাকে ভোলেননি | তাঁর চোখে, 'গণিত ও কবিতা একই জিনিস' | আমৃত্যু গণিত ও কবিতার দ্বারা তাড়িত | মৃত্যু: ২০০৬ সালে |

Download

Authors

 
Support : Visit our support page.
Copyright © 2018. Amarboi.com - All Rights Reserved.
Website Published by Amarboi.com
Proudly powered by Blogger.com