Ticker

6/recent/ticker-posts

Header Widget

গালিবের স্মৃতি - মৌলানা আলতফ হুসেন হালি,পুস্পিত মুখোপাধ্যায় (অনূদিত)

গালিবের স্মৃতি- মৌলানা আলতফ হুসেন হালি,
পুস্পিত মুখোপাধ্যায় (অনূদিত)
গালিবের স্মৃতি
মৌলানা আলতফ হুসেন হালি,
পুস্পিত মুখোপাধ্যায় (অনূদিত)

উর্দু সাহিত্যে মির্জা গালিবের গুরুত্ব বাংলা সাহিত্যের রবীন্দ্রনাথের যে গুরুত্ব তার চেয়েও বেশি বললে অত্যুক্তি হয় না। গালিবের আগে পরে বহু কবি ও গদ্যকার উর্দুতে এসেছেন, গিয়েছেন। কিন্তু গালিবের জনপ্রিয়তায় এতটুকু ভাটা পড়েনি। তাঁর সর্বগ্রাসী প্রভাব থেকে আজও উর্দু সাহিত্য অনেকাংশে মুক্ত হতে পারেনি। বিশেষ করে তাঁর গদ্য এবং কবিতায় আধুনিকতার দিক থেকে।

উর্দু সাহিত্যের সবচেয়ে প্রভাবশালী কবি ও গদ্যকার গালিব সাহিত্যিক হিসাবে যত সুনাম অর্জন করেছিলেন, মদ্যপ, নাস্তিক এবং উচ্ছৃঙ্খল হিসেবে ততটাই বদনাম তাঁর ভাগ্যে জুটেছিল। কট্টরপন্থীরা চিরকাল গালিবকে গালাগাল করে এসেছেন। রসিক গালিব নির্বিকারে সে-সব গায়ে মেখে উর্দু পদ্যে গদ্যে বিপ্লব ঘটিয়ে গেছেন। গালিবই আধুনিক উর্দু গদ্যের জনক।

গালিব সারা জীবন যে-সব ব্যক্তির সঙ্গে মেলামেশা, ওঠাবসা করেছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম প্রিয় ব্যক্তিটির নাম মৌলানা আলতফ হুসেন হালি। হালি দীর্ঘদিন গালিবের প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে কাটিয়েছেন। হালিকে তিনি পুত্রবৎ স্নেহ করতেন।
মৌলানা আলতফ হুসেন হালির জন্ম ১৮৩৭ সালে, পাণিপথে। রেনেসাঁস কালীন সময়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উর্দু কবি। ১৯০৪ সালে হালিকে ‘শম্‌সুল-উলেমা’ (সর্বশ্রেষ্ঠ পণ্ডিত) উপাধি প্রদান করা হয়।

হালির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ রচনার নাম-‘মুসদ্দস’ এবং ‘ইয়াদগার-ই-গালিব’।

‘ইয়াদগার-ই-গালিব’ দুটি খণ্ড বিভক্ত। একটি উর্দু, একটি ফার্সি। আবার উর্দু খণ্ডটি দু’ভাগে ভাগ করা। প্রথম ভাগে জীবনী, দ্বিতীয় ভাগে তার উর্দু পদ্য গদ্যের ব্যাখ্যা। এ গ্রন্থটি উর্দু খণ্ডের প্রথম অংশের অনুবাদ অর্থাৎ গালিবের জীবনী।

বিস্তারিত জানতে ও পড়তে হলে বইটি কিনুন। পাওয়া যাচ্ছে বইমেলায়...

Comments/Join our Facebook Group